আলিপুরদুয়ার জেলা ঘোষণা হবার পর ফালাকাটা মহকুমা ঘোষণা হবে বলে বাসিন্দারা আশায় বুক বেঁধে ছিলেন।

তবে আজ জেলা ঘোষণা হবার পর ছয় বছর পেরিয়ে যাবার পর জেলায় দ্বিতীয় মহকুমা ঘোষণা হয় নি। দুতিন মাস মাস বাদে ফালাকাটা বিধানসভার উপ নির্বাচন। এবং সেই নির্বাচনের আগে ফের এলাকার লোকজন মহকুমার দাবিতে ফের সরব হয়েছেন।

বাসিন্দাদের অভিযোগ, জলপাইগুড়ি জেলা ভাগ করে আলিপুরদুয়ারকে পৃথক জেলার মর্যাদার দাবিতে গোঁড়া থেকে সরব হন ফালাকাটার বাসিন্দারা। এলাকার ভৌগলিক দিক সহ জনবসতির দিক বিবেচনা করে রাজ্য সরকার ফালাকাটাকে মহকুমার মর্যাদা দেবে বলে গোঁড়া থেকে আশায় বুক বাঁধেন তাঁরা। তাছাড়া, আলিপুরদুয়ার জেলার মধ্যে একমাত্র ফালাকাটা বিধানসভার আসন যেখানে তৃণমূল সরকার রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকে টানা দু বার তৃণমূলের প্রতিনিধিকে জয়ী করেছেন এলাকার বাসিন্দারা।

বহু আশা নিয়ে এলাকার বাসিন্দারা মহকুমা দাবি কমিটি গঠন করে বিধায়কের হাত দিয়ে ছ বছর আগে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে দাবিপত্র পাঠান।

কাজের কাজ কিচ্ছু হয় নি।
উল্টে, পুরসভার মর্যাদা পায়নি ফালাকাটা। মানুষ বহু আশায় বুক বেঁধে দ্বিতীয় বার তৃণমূলের প্রার্থীকে জয়ী করেন। তবে পঞ্চায়েত নির্বাচন থেকে মানুষ যে তৃণমূলের থেকে বিশ্বাসযোগ্যতা ক্রমশ হারাচ্ছে তা ওই নির্বচনের ফলাফল দেখিয়ে দিয়েছে। লোকসভা নির্বচনে কার্যত তৃণমূলের থেকে বহু গুণ দুর্বল দল বিজেপি প্রার্থী এই বিধানসভা এলাকায় বিপুল ভোটে এগিয়ে যান।
কয়েক মাস আগে ফালাকাটার প্রাক্তন বিধায়ক অনিল অধিকারী মারা যান।

টানা এতো গুলি বছর ক্ষমতায় থাকার পর শাসক দলের কাজ কর্ম সহ নানান বিষয়ে ক্ষোভ ক্রমশ বাড়ছে গোটা বিধানসভা এলাকায়। আর সেই ক্ষোভকে কাজে লাগিয়ে বিজেপি ক্রমশ সংগঠন বাড়িয়ে চলেছে। কেননা, গোটা জেলায় ২১শে বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল কি হবে তার পূর্বাভাস জানাবে এই ফালাকাটা।

সবার আগে খবর পেতে , পেইজে লাইক দিন