দেওয়াল চাপা পড়ে এক মহিলার মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। শুক্রবার গভীর রাতে ঘটনাটি ঘটেছে শিলিগুড়ির অদূরে সাহুডাঙি এলাকায়। মৃত মহিলার নাম মেহেরুন্নেসা । অপর এক মহিলা গুরুতর জখন হন। তাঁকে উদ্ধার করে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটন পুলিশের নিউ জলপাইগুড়ি থানার পুলিশ। জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ সহ রাজগঞ্জের বিডিও এবং প্রশাসনিক কর্তারা । অভিযোগ, অবৈধ ভাবে সীমানা প্রাচীর করার জন্যই এভাবে দেওয়াল ভেঙে পড়ে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে, গতকাল রাতে প্রবল বৃষ্টি হয়।সে সময় আচমকা গুদামের সীমানা প্রাচীর ভেঙে একটি বাড়ির ওপর পড়ে। সে সময় বাড়ির সকলে ঘুমিয়েছিলেন৷ দেওয়ালে চাপা পড়ে ওই বাড়ির চল্লিশ বছর বয়সী
মহিলার ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। জখম হন তাঁর মা। তাকে স্থানীয়রা মিলে টেনে বের করে হাসপাতালে পাঠায়৷আরও চারটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। একটি বাড়ির লোকজন গাছোর মধ্যে দেওয়াল আটকে থাকায় অল্পের জন্য রক্ষা পায়। শনিবার সকালে ঘটনাস্থলে পৌঁছান রাজগঞ্জের বিডিও সহ জলপাইগুড়ি জেলা পরিষদের কর্মাধক্ষ্য দেবাশীষ প্রামানিক। তিনি অভিযোগ করে বলেন, “এই গোডাউনের মালিক অবৈধ ভাবে এখানে সীমানা প্রাচীর তৈরী করে। এর আগেও দেওয়াল পড়ে গিয়ে আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছিল। কিন্তু বারবার বলা সত্বেও সীমানা প্রাচীরটি ঠিক করা হয় নি। ”

সেচ দফতরের একটি ঝোরা সহ রেললাইনও দখল করে নিচ্ছে ওই গোডাউনলর মালিক। এটা আর কোনো মতেই মেনে নেওয়া যায় না। প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে গোটা দেওয়ালটি ভেঙে দেওয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

পাশাপাশি, যে সমস্ত বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত ক্ষতিপুরণ দেওয়া না হবে গোডাউনের গেট খুলতে দেওয়া হবে না বলে তার হুশিয়ারী দেন তিনি।
মালিকের বিরুদ্ধে থানায় এফআইআর করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

সবার আগে খবর পেতে , পেইজে লাইক দিন