দ্য উইন্ড ওয়েবডেস্কঃ লাদাখ এবং দক্ষিণ চিন সাগরের পরে এবার নজরদারি ভুটান সীমানায়। সীমান্ত সমস্যা নিয়ে বেজিং- ভুটান ২৫ তম বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা চলতি মাসের শেষেই।

তার আগেই অবশ্য চিন- ভুটান সীমান্তের মধ্য ও পশ্চিম সেক্টরে লাল ফৌজের তৎপরতার পাশাপাশি অনুপ্রবেশের অভিযোগও উঠছে। চলতি বছরের গোড়ায় ২৫ তম রাউন্ডের বৈঠকের কথা থাকলেও তা করোনা পরিস্থিতিতে পিছিয়ে যায়। সংবাদসংস্থা সূত্রের খবর লাল ফৌজের বাড়বাড়ন্তে সন্ত্রস্ত থিম্পু।

কূটনৈতিক বিশ্লেষকদের একাংশ মনে করছেন, বৈঠকের আগে ভুটানকে চাপে রাখতেই চিনের এই কৌশল। ২০১৭ সালে ডোকলাম মালভূমিতে ভারত ও চিনা সেনার টানা ৭৩ দিনের ‘স্ট্যান্ড অফ’ পর্বে নয়াদিল্লির পাশে দাঁড়িয়েছিল ভুটান। তাই এ ক্ষেত্রে ভারতের বন্ধুরাষ্ট্রকে ‘শিক্ষা’ দেওয়ার মনোভাবও থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। পশ্চিম সেক্টরের ৩১৮ বর্গ কিলোমিটার, এবং মধ্য সেক্টরের ৪৯৫ কিলোমিটার চিন দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছে।মধ্যে চুম্বি উপত্যকার পূর্ব ভুটানের প্রায় ৪০ কিলোমিটার অন্দরে ঢুকে তারা রাস্তা এবং হেলিপ্যাড বানিয়েছে বলে অভিযোগ।

সবার আগে খবর পেতে , পেইজে লাইক দিন